সংসদকে খাটো করায় ষড়যন্ত্রের রাজনীতি উৎসাহিত

0016471_kalerkantho-2017-8-25 (1)

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘ষোড়শ সংশোধনীর আপিলের রায় পর্যবেক্ষণে সংসদকে খাটো করায় ষড়যন্ত্রের রাজনীতি উৎসাহিত হয়েছে এবং বিএনপি সে সুযোগ নিচ্ছে।’

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীতে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট (পিআইবি) মিলনায়তনে পিআইবি এবং একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) কর্মসূচির উদ্যোগে সাংবাদিকতা শেখার ই-লার্নিং প্লাটফর্ম ‘অনলাইন সার্টিফিকেট কোর্স অন জার্নালিজম’ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

পিআইবি মহাপরিচালক শাহ আলমগীরের সভাপতিত্বে তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ বিশেষ অতিথি হিসেবে এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মফিজুর রহমান, ও এটুআই’র জনপ্রেতি বিশেষজ্ঞ নাইমুজ্জামান মুক্তা আলোচনায় অংশ নেন।

বিচার বিভাগ ও গণমাধ্যমকে গণতন্ত্রের অন্যতম স্তম্ভ হিসেবে বর্ণনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিচারক ও সাংবাদিকরা গণতন্ত্রে প্রহরীর ভূমিকা পালন করেন। তাই নীতি ও গণতন্ত্রে তাদের অটল থাকতে হবে, রাজনীতির গুটি হওয়া চলবেনা, ষড়যন্ত্রের পাতা ফাঁদে পা দেয়া চলবেনা, নিরপেক্ষতার নামে মুক্তিযোদ্ধা আর রাজাকারকে এক পাল্লায় মাপা চলবেনা।

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘বিচারপতি চাই, রাজনীতিক বিচারক চাই না। স্বাধীন আদালত চাই, আদালত রাজনীতির মঞ্চ হবে না। আদালত বিচারকার্য করবে, রাজনীতিতে নাক গলাবে না। বিচারপতিরা ইতিহাস পাঠ করবে, ইতিহাস বিকৃত করবে না।’

‘বিচারপতিরা সংবিধানের ব্যাখ্যা দেবেন, জনগণের অভিভাবক হবার চেষ্টা করবেন না। জনগণই দেশের অভিভাবক’ বলেন মুক্তিযোদ্ধা ইনু।

‘একইভাবে সাংবাদিকরা গণমাধ্যমের পবিত্রতা রা করা করবে, মিথ্যাচার, তথ্যবিকৃিত,অপসাংবাদিকতা, পোষা-সাংবাদিকতা থেকে দূরে থাকবে’ বলেন তিনি।

বর্তমান সাংবাদিকতার প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণ করে তথ্যমন্ত্রী এসময় চিরায়ত, অনলাইন ও নাগরিক সাংবাদিকতার বিভিন্ন দিকে আলোকপাত করে সাংবাদিকদের ডিজিটাল ও অনলাইন পদ্ধতি প্রশিক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

বিকেলে তথ্যমন্ত্রী জাতীয় প্রেসকাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এস আর লাকী সম্পাদিত সংসদ বিষয়ক নতুন মাসিক পত্রিকা ‘দ্য পার্লামেন্ট ফেইস’ এর প্রকাশনা উদ্বোধন করেন।

—————————————————————————————————————————————————-

মহান অক্টোবর বিপ্লবের শততমবার্ষিকী
চীন সফরে বামপন্থী নেতৃবৃন্দ

মহান অক্টোবর বিপ্লবের শততমবার্ষিকী উপলক্ষে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে বাংলাদেশের বামপন্থী দলগুলোর আট সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল মঙ্গলবার রাতে চায়না সাউদার্ন এয়ারযোগে চীনের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন।

বাংলাদেশ সরকারের সাথে চীনের ক্রমবিকাশমান সহযোগিতার পেক্ষ্রাপটে এ সফরের রাজনৈতিক তাৎপর্য রয়েছে। আগামী ১২ সেপ্টেম্বও পর্যন্ত এসফরে তারা চীনা কমিউনিস্ট পার্টি আয়োজিত ‘অক্টোবর বিপ্লবোত্তর একশত বছরে মার্কসবাদের নতুন নতুন তত্ত্বগত উদ্ভাবন নিয়ে পর্যালোচনা’ বিষয়ে বেশ কয়েকটি সেমিনারে অংশ নেবেন। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, নেপাল ও শ্রীলংকার কমিউনিস্ট ও বামপন্থী পার্টির প্রতিনিধিরা এতে অংশ নিচ্ছেন।

সাবেক শিল্পমন্ত্রী ১৪ দল ও মহাজোটের অন্যতম নেতা, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের (মা:লে:)  সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়ার নেতৃত্বে এ প্রতিনিধি দলে রয়েছেন জাসদের স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রফেসার ড. আনোয়ার হোসেন, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ওবায়দুর রহমান চুন্নু, সাম্যবাদী দলের পলিট ব্যুরো সদস্য সাইফুল ইসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য কমরেট কামরুল আহসান ও কেন্দ্রীয় সদস্য কমরেড তপন দত্ত, কমিউনিস্ট পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুল্লাহ আল কাফি ও কেন্দ্রীয় সদস্য হাফিজুল ইসলাম প্রমূখ।

Pin It