পিডিবির লোকসান কমাতে কর অবকাশ চান প্রতিমন্ত্রী

তেল কেনার ক্ষেত্রে পিডিবিকে কর অবকাশ সুবিধা দেওয়া হলে বছরে সরকারি এ সংস্থার প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা বাঁচবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি শুরুর আগে প্রতিমন্ত্রীর এ মন্তব্য এল।

বিদ্যুতের মূল্য নির্ধারণে কর অবকাশ সুবিধার ভূমিকার কথা তুলে ধরে নসরুল হামিদ  বলেন, “আমরা চাচ্ছি, পিডিবির তেলের মূল্য সমন্বয় করে দেয়া হোক।

“এ বিষয়ে আমরা প্রস্তাব রেখেছি। কিছু দিনের মধ্যে এটা অর্থ মন্ত্রণালয়েও পাঠাব।”

গত সাড়ে সাত বছরে খুচরা পর্যায়ে সাতবার ও পাইকারিতে পাঁচবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর পর বিতরণ কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে আবারও দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

পাইকারিতে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম ১৫ শতাংশ এবং খুচরা পর্যায়ে ৬ শতাংশের বেশি বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে সেখানে।

ওই প্রস্তাবের ওপর আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর শুনানি শুরু করবে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিতরণ কোম্পানিগুলোর দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বিইআরসি। সেখানে সরকারের কিছু করার নেই। তবে সরকার তেল কেনার ক্ষেত্রে পিডিবিকে কর অবকাশ সুবিধা দিলে উৎপাদন খরচ কম রাখা যেত।

তেলভিত্তিক বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা দেশের মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতার ২৮ শতাংশ।

দেশের ৪৬টি তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে মোট ৩ হাজার ৭৬৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া সম্ভব। এর মধ্যে পিডিবির হাতে থাকা বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা ১ হাজার ১১২ মেগাওয়াট।

বেসরকারি তেলভিত্তিক বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোর অর্ধেকের বেশি নিজস্ব উদ্যোগে তেল আমদানি করে। আর পিডিবি নিজস্ব বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর জন্য বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) কাছ থেকে তেল কেনে।

বেসরকারি বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোর মধ্যে যারা নিজস্ব উদ্যোগে আমদানি করে না তারাও পিডিবির মাধ্যমে বিপিসির কাছ থেকে তেল কেনে।

নিজস্ব উদ্যোগে তেল আমদানি করা বেসরকারি বিদ্যুতকেন্দ্রগুলো আমদানিতে ভ্যাট ও টারিফ অব্যাহতির সুবিধা পাচ্ছে।

বিপিসির পরিচালক (অপারেশনস ও প্ল্যানিং) সৈয়দ মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক বলেন, বিপিসি থেকে পিডিবি যে তেল কিনছে তার ওপর ১৮ শতাংশ ভ্যাট ও প্রতি ব্যারেলে ৪০ সেন্ট করে ট্যারিফ যোগ করে মূল্য নির্ধারণ করা হচ্ছে।

“বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদকদের মত কর অব্যহতি সুবিধা পিডিবিকেও দিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এনবিআর কোনো সিদ্ধান্ত না দেওয়ায় আমরা কিছু করতে পারছি না।”

ভ্যাট ও ট্যারিফ কমে গেলে বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোর তেলের দাম অনেক কমে যাবে বলে জানান তিনি।

বিপিসির হিসাবে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোর জন্য বিপিসি ১২ লাখ মেট্টিক টন তেল বিক্রি করেছে।

বেসরকারি তেলভিত্তিক বিদ্যুতকেন্দ্রগুলোকে কর অব্যাহতি সুবিধা দেওয়ার পাশাপাশি তাদের কাছ থেকে উচ্চমূল্যে বিদ্যুত কিনতে হয় সরকারকে।

অন্যদিকে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে রাষ্ট্রায়াত্ত প্রতিষ্ঠান পিডিবির লোকসান হয়েছে ৫১৪১ কোটি টাকা। তার আগের অর্থবছরে লোকসান ছিল ৩৮৬৭ কোটি টাকা।

Pin It