‘ঘুষ নেওয়ার সময়’ ওয়াকফ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

Dudok

ঢাকায় নিজের কার্যালয়ে বসে ঘুষ নেওয়ার সময় মো. মোতাহার হোসেন খান নামে ওই কর্মকর্তাকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য।

তিনি বলেন, “আজ (রোববার) দুপুরে রমনার নিউ ইস্কাটন রোডে বাংলাদেশ ওয়াকফ প্রশাসকের কার্যালয়ে ঘুষের ৫০ হাজার টাকাসহ মোতাহার হোসেন খানকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়।”

দুদক ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বে এই অভিযান চালানো হয়।

দুদক কর্মকর্তারা জানান, ২০১৩ সালের ১ অগাস্ট ঢাকার কেরানীগঞ্জ উপজেলার বাঘৈর জামে মসজিদের উন্নয়ন কাজের জন্য মসজিদের শূন্য দশমিক ৯৪ একর সম্পত্তি বিক্রয়ের অনুমতি চেয়ে বাংলাদেশ ওয়াকফ প্রশাসক কার্যালয়ে একটি আবেদন করা হয়।

মসজিদের মোতয়ালি আবুল বাশার বেপারী ওই আবেদনটি করলেও পরে তিনি মোতওয়াল্লি কমিটি সদস্য মো. ফারুক হোসেনকে সম্পত্তি বিক্রির ক্ষমতা হস্তান্তর করেন।

সম্প্রতি ফারুক হোসেন দুদক অভিযোগ কেন্দ্রের হটলাইন ১০৬ নম্বরে অভিযোগ করেন, তার কাছ থেকে সহকারী প্রশাসক মোতাহার হোসেন কাজটি করে দেওয়ার জন্য পাঁচ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেছেন।

প্রনব বলেন, “ঘুষের ৫০ হাজার টাকা হস্তান্তরেরদিন আজ দুদক দলের সদস্যরা সকাল থেকেইে ওয়াকফ কার্যালয়ের চারিদিকে ওঁৎ পেতে ছিলেন।

“দুপুর সোয়া ১২টার দিকে নিজ দপ্তরে বসে যখন মোতাহার হোসেন খান ঘুষ গ্রহণ করছিলেন, ঠিক তখনই দুদক দলের সদসরা তাকে ঘুষের টাকাসহ হাতে-নাতে গ্রেপ্তার করে।”

ওই সময় মোতাহারের প্যান্টের পকেট ও আলমারি তল্লাশি করে আরও ৭৯ হাজার টাকা পাওয়া যায় জানিয়ে প্রনব বলেন, “এসব টাকার উৎস সম্পর্কে গ্রেপ্তার মোতাহার হোসেন কোনো জবাব দিতে পারেননি।”

এই ঘটনায় দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক মো. নাজিম উদ্দীন বাদী হয়ে রমনা থানায় একটি মামলা করেছেন।

Pin It